স্বামীকে পরকীয়া থেকে রক্ষা করার আমল

2,050.00৳ 

ফোন করুন: 01751358526

> প্রত্যেকটি  চেক করা এবং কোয়ালিটি সম্পন্ন ।
>>  আমরা সবচেয়ে কম দামে দিতে পারি
>> সারাদেশে হোম ডেলিভারির মাধ্যমে পৌঁছে দেয়া হয়ে থাকে ।

>> ক্যাশ অন ডেলিভারি খরচ ঢাকার মধ্যে ৬০ ঢাকার বাইরে ১১০ টাকা ! (পরিবর্তনীয়)

842 in stock

Description

স্বামীকে পরকীয়া থেকে রক্ষা করার আমল স্বামীকে পরকীয়া থেকে রক্ষা করার জন্য ইসলামে কিছু আমল বর্ণনা করা হয়েছে। এসব আমল পালন করলে আল্লাহর রহমতে স্বামী পরকীয়া থেকে বেঁচে থাকবে।

আরো পড়ুন: ছেলেদের মেয়েদের কন -ডম গুপ্ত –  স্থান মেয়েদের পু -শি  কিনতে এখনই কিনুন

স্বামীকে পরকীয়া থেকে রক্ষা করার আমল

১. আল্লাহর কাছে তওবা ও হেদায়েতের জন্য দোয়া করা

পরকীয়া একটি গুনাহ। তাই স্বামীকে পরকীয়া থেকে রক্ষা করার জন্য প্রথমেই আল্লাহর কাছে তওবা ও হেদায়েতের জন্য দোয়া করা উচিত। আল্লাহ বলেন,

وَمَنْ يَتُوبْ إِلَى اللَّهِ فَإِنَّهُ يَؤْتِيهِ مَغْفِرَةً وَأَجْرًا عَظِيمًا

“যে ব্যক্তি আল্লাহর দিকে ফিরে আসে, নিশ্চয়ই আল্লাহ তাকে ক্ষমা করে দেবেন এবং মহাপুরস্কার দেবেন।” (সূরা নিসা: ১৭)

২. স্বামীকে ঈমানের উপর দৃঢ় রাখা

ঈমানের উপর দৃঢ় থাকা পরকীয়া থেকে বেঁচে থাকার অন্যতম শর্ত। তাই স্বামীকে ঈমানের উপর দৃঢ় রাখার জন্য চেষ্টা করা উচিত। তার সাথে কুরআন ও হাদীসের আলোচনা করা, আল্লাহর ভয় সম্পর্কে সচেতন করা এবং ঈমানী আমলগুলোর প্রতি উদ্বুদ্ধ করা।

৩. স্বামীর সাথে ভালোবাসা ও সম্মানের সম্পর্ক বজায় রাখা

স্বামীর সাথে ভালোবাসা ও সম্মানের সম্পর্ক বজায় রাখা পরকীয়া থেকে বেঁচে থাকার অন্যতম উপায়। তাই স্বামীর প্রতি ভালোবাসা ও সম্মানশীল আচরণ করা উচিত। তার চাহিদাগুলো পূরণ করার চেষ্টা করা, তার সাথে সুন্দর ও মধুর আচরণ করা এবং তাকে কখনো অবহেলা করা উচিত নয়।

৪. স্বামীকে আল্লাহর ভয় সম্পর্কে সচেতন করা

আল্লাহর ভয় সম্পর্কে সচেতন হলে মানুষ গুনাহ থেকে বিরত থাকে। তাই স্বামীকে আল্লাহর ভয় সম্পর্কে সচেতন করা উচিত। তাকে আল্লাহর শাস্তি ও পুরস্কারের কথা বলতে হবে। তাকে বুঝাতে হবে যে, পরকীয়া মহাপাপ এবং এর শাস্তি অত্যন্ত ভয়াবহ।

৫. স্বামীকে ভালো কাজের প্রতি উৎসাহিত করা

ভালো কাজের প্রতি উৎসাহিত হলে মানুষ গুনাহ থেকে বিরত থাকে। তাই স্বামীকে ভালো কাজের প্রতি উৎসাহিত করা উচিত। তাকে কুরআন ও হাদীসের শিক্ষাগুলো বাস্তব জীবনে প্রয়োগ করতে উদ্বুদ্ধ করতে হবে। তাকে ভালো আমলগুলোর প্রতি আগ্রহী হতে হবে।

৬. স্বামীকে ভালো সঙ্গীর সাথে পরিচয় করিয়ে দেওয়া

ভালো সঙ্গীর প্রভাবে মানুষ ভালো কাজের দিকে আকৃষ্ট হয়। তাই স্বামীকে ভালো সঙ্গীর সাথে পরিচয় করিয়ে দেওয়া উচিত। তাকে এমন বন্ধুদের সাথে মিশতে উৎসাহিত করতে হবে যারা নেককার ও ধার্মিক।

৭. স্বামীকে পরকীয়া সম্পর্কে সচেতন করা

পরকীয়া সম্পর্কে সচেতন হলে মানুষ এ থেকে বিরত থাকে। তাই স্বামীকে পরকীয়া সম্পর্কে সচেতন করা উচিত। তাকে পরকীয়ার কুফল ও ক্ষতি সম্পর্কে বলতে হবে। তাকে বুঝাতে হবে যে, পরকীয়া একটি ঘৃণিত কাজ এবং এটি শুধুমাত্র তার জীবনই নষ্ট করবে না, তার পরিবার ও সমাজের জন্যও ক্ষতিকর।

৮. স্বামীকে আল্লাহর উপর ভরসা করতে উৎসাহিত করা

আল্লাহর উপর ভরসা করলে মানুষ সবকিছুতে সফল হয়। তাই স্বামীকে আল্লাহর উপর ভরসা করতে উৎসাহিত করা উচিত। তাকে বুঝাতে হবে যে, আল্লাহ সবকিছুর মালিক এবং তিনি সবকিছুর ব্যবস্থা করতে পারেন।

এই আমলগুলো পালন করলে আল্লাহর রহমতে স্বামী পরকীয়া থেকে বেঁচে থাকবে। তবে মনে রাখতে হবে, এসব আমল পালন করলেই স্বামী পরকীয়া থেকে বেঁচে যাবে এমনটা ভাবা ঠিক নয়। কারণ, পরকীয়া একটি গুনাহ এবং গুনাহের কাজ থেকে বেঁচে থাকার জন্য আল্লাহর রহমত ও সাহায্য অপরিহার্য।

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “স্বামীকে পরকীয়া থেকে রক্ষা করার আমল”

Your email address will not be published. Required fields are marked *